ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১৭ মার্চ ২০২২
  1. Covid-19
  2. অপরাধ ও আদালত
  3. অর্থনীতি
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইসলাম ডেস্ক
  6. কৃষি ও অর্থনীতি
  7. খেলাধুলা
  8. জাতীয়
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. দেশজুড়ে
  11. নির্বাচন
  12. বানিজ্য
  13. বিনোদন
  14. ভিডিও গ্যালারী
  15. মুক্ত মতামত ও বিবিধ কথা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চলন্ত গাড়িতে গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগ স্বামী ও বন্ধুদের বিরুদ্ধে!

প্রতিবেদক
প্রতিদিনের বাংলাদেশ
মার্চ ১৭, ২০২২ ৫:১৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টারঃ মানিকগঞ্জে প্রাইভেটকারে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে সাবেক স্বামীসহ চার বন্ধু মিলে এক গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

শনিবার (১২ মার্চ) রাতে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় রোববার (১৩ মার্চ) অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় মামলা করেন ওই গৃহবধূ। তবে এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করা হয়নি।

আসামিরা হলেন- সাবেক স্বামী আল-মামুন রশিদ (৩৮), আব্দুর রব মুন্না (৪৫), হাসু (৩৪) ও রিয়াজ (৩৫)।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলার ওই গৃহবধূর (৪৫) সঙ্গে ২০১৮ সালে দৌলতপুর উপজেলার টুটিয়াম গ্রামের সৈকত আলীর ছেলে আল-মামুন রশিদের দ্বিতীয় বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে যৌতুকের দাবিতে প্রায় তাকে মারধর করা হতো। এ ঘটনায় গত বছর ওই গৃহবধূ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা করেন। ওই মামলায় আদালত থেকে জামিন পাওয়ার পর গত বছরের ১৫ নভেম্বর ওই গৃহবধূকে তালাক দেন আল-মামুন রশিদ। এরপর বিভিন্নভাবে তাকে হুমকিও দিতে থাকেন। এরমধ্যেই গত শনিবার (১২ মার্চ) বিকেলে গৃহবধূ বাবার বাড়ি থেকে মানিকগঞ্জে ফুফুর বাড়ির উদ্দেশে রওনা হন। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে ঘিওর পাঁচ রাস্তার কাছে ফাঁকা জায়গায় পৌঁছালে একটি প্রাইভেটকার থেকে তার সাবেক স্বামী আল-মামুনসহ তার বন্ধুরা জোর করে গাড়িতে তুলে নেয়। কিছুক্ষণ পর তাকে জোরপূর্বক নেশাজাতীয় কিছু পান করালে তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এরপর চলন্ত গাড়িতেই তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করা হয়। এরপরে রাত সাড়ে ১১টার দিকে একটি পরিত্যক্ত জায়গায় হাত-পা বেঁধে ফেলে পালিয়ে যান। এ সময় তার চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন তাকে উদ্ধার করে পুলিশকে খবর দেন।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার বলেন, খবর পেয়ে ওই রাতেই গৃহবধূকে উদ্ধার করা হয়। পরদিন রোববার গৃহবধূর মামলা গ্রহণ করে ডাক্তারি পরীক্ষা করাতে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে পাঠাই। পরীক্ষার রিপোর্টের অপেক্ষায় আছি। গৃহবধূকে তার পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশ মাঠে কাজ করছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন