ঢাকাবৃহস্পতিবার , ৫ আগস্ট ২০২১
  1. Covid-19
  2. অপরাধ ও আদালত
  3. অর্থনীতি
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইসলাম ডেস্ক
  6. কৃষি ও অর্থনীতি
  7. খেলাধুলা
  8. জাতীয়
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. দেশজুড়ে
  11. নির্বাচন
  12. বানিজ্য
  13. বিনোদন
  14. ভিডিও গ্যালারী
  15. মুক্ত মতামত ও বিবিধ কথা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রংপুরে ভুয়া মহিলা ম্যাজিস্ট্রেট আটক

প্রতিবেদক
প্রতিদিনের বাংলাদেশ
আগস্ট ৫, ২০২১ ৮:০৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রতারণার অভিযোগে তাসনিম সরকার ওরফে অনামিকা নামে এক ভুয়া মহিলা ম্যাজিস্ট্রেটকে গ্রেফতার করেছে পিবিআই পুলিশ। বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) দুপুরে পিবিআই কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এ তথ্য জানিয়েছেন পিবিআই পুলিশ সুপার এবিএম জাকির হোসেন ।

তিনি বলেন, গত ২ আগস্ট রংপুর নগরীর সিও বাজারের বাসা থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন রংপুর কারাগারের সাবেক সার্জেন্ট ইন্সট্রাক্টর আনজু মিয়া (৫১)।

এ ঘটনায় আনজু মিয়ার স্ত্রী রংপুর মেট্রোপলিটন থানায় সাধারণ ডায়েরী করেন। পরদিন ৩ আগস্ট পিবিআইয়ের একটি টিম নিখোঁজ আনজু মিয়াকে রংপুর নগরীর ডিসির মোড়ে অবস্থিত ‘সুস্থ জীবন মাদক নিরাময় কেন্দ্র’ থেকে উদ্ধার করে।

জিজ্ঞাসাবাদে আনজু জানান, গত ৬ মাস আগে বিমানে ভ্রমণের সময় অনামিকার সাথে পরিচয় ও ব্যক্তিগত ফোন নম্বর আদান-প্রদান হয় তার। এরপর ২ আগস্ট সকালে অনামিকা ফোনে আনজুকে জিলা স্কুলের গেটে ডেকে পাঠান। সেখানে একটি নোহা গাড়িতে বসে থাকা অনামিকাকে দেখে আনজু এগিয়ে গেলে ২-৩ জন অপরিচিত ব্যক্তি তাকে ঘিরে ফেলে এবং জোরপূর্বক পার্শ্ববর্তী সুস্থ জীবন মাদক নিরাময় কেন্দ্রে নিয়ে যায়। এরপর আনজুর দেহ তল্লাশি করে নগদ ৪৪ হাজার ২৫০ টাকা এবং হাতঘড়ি, স্বর্ণের আংটি, ড্রাইভিং লাইসেন্স ছিনিয়ে নেয়।

এ বিষয়ে আনজু আটককারীদের কাছে জানতে চাইলে তারা বলেন অনামিকার অনুরোধে মাদকাসক্তের চিকিৎসার জন্য নিরাময় কেন্দ্রে আনা হয়েছে। এরপর জব্দকৃত টাকা ও স্বর্ণের জিনিষপত্র অনামিকা নিয়ে নেয় এবং বাকি কাপড় চোপড় ও আনজুর মোটরসাইকেল আনজুর ভাই এসে নিয়ে যাবে বলে জানিয়ে সটকে পড়ে অনামিকা।

এরই মধ্যে নিরাময় কেন্দ্র থেকে আনজুর ডোপ টেস্টও করা হয়। এদিকে আনজু’র নিখোঁজের বিষয়টি পিবিআইয়ের নজরে আসলে ৩ আগস্ট তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার করে তাকে উদ্ধার করা হয়। এরপর পিবিআইয়ের সদস্যরা দিনাজপুর থেকে অনামিকা তাসনিম ওরফে অনামিকাকে গ্রেফতার করা হয়।

পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার এবিএম জাকির হোসেন বলেন, কথিত নারী ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয় দেয়া প্রতারক অনামিকা সরকার ও অন্যান্য সদস্যরা ছদ্মবেশে নিত্য নতুন প্রতারণা করে মানুষকে ঠকিয়ে আসছিল। এদের নামে বিভিন্ন থানায় মামলাও রয়েছে। তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

আপনার মন্তব্য লিখুন