ঢাকামঙ্গলবার , ১৮ মে ২০২১
  1. Covid-19
  2. অপরাধ ও আদালত
  3. অর্থনীতি
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইসলাম ডেস্ক
  6. কৃষি ও অর্থনীতি
  7. খেলাধুলা
  8. জাতীয়
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. দেশজুড়ে
  11. নির্বাচন
  12. বানিজ্য
  13. বিনোদন
  14. ভিডিও গ্যালারী
  15. মুক্ত মতামত ও বিবিধ কথা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লালমনিরহাটে যৌতুকের জন্য গৃহবধূকে মারপিটের অভিযোগ!

প্রতিবেদক
প্রতিদিনের বাংলাদেশ
মে ১৮, ২০২১ ৭:৩০ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আশরাফুল হক, লালমনিরহাট।। লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলায় যৌতুকের জন্য সোনিয়া(২০) নামে এক গৃহবধূকে লাঠি দিয়ে বেধড়ক পেটানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। মারধরের সময় সোনিয়ার কোলে থাকা ১ মাস বয়সী কন্যা শিশুটিও আহত হন। গত সোমবার ১৭ মে সন্ধ্যায় হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য-কমপ্লেক্সে থেকে রিলিজ নিয়ে সোনিয়া বাদী হয়ে হাতীবান্ধা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেন। এর আগে ১৫ মে সন্ধ্যায় উপজেলার কেতকী বাড়ী এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। গৃহবধূকে মারধরের ঘটনায় অভিযুক্তরা হলেন, উপজেলার কেতকী বাড়ী এলাকার আনছার আলীর ছেলে ও সোনিয়ার স্বামী মনিরুজ্জামান (২৫), মনিরুজ্জামানের বাবা আনছার আলী(৫০) ও মা ময়না বেগম(৪৫)। আহত গৃহবধূ সোনিয়া হাতীবান্ধা উপজেলার মধ্যম কাদমা এলাকার আমিনুর রহমানের মেয়ে।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী ওই গৃহবধূ সোনিয়ার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, প্রায় দেড় বছর আগে মনিরুজ্জামানের সাথে বিয়ে হয় সোনিয়ার। বিয়েতে ৪ লক্ষ্য টাকা দাবী করলেও নগদ ১ লক্ষ টাকা ও ১২৫ সিসির একটি ডিসকভার বাইক দেয়া হয়। এরপর সংসার চলাকালীন সোনিয়া-মনিরের ঘর আলোকিত করে জন্ম নেন কন্যা শিশু সুনিয়া। ইতিমধ্যে মনিরুজ্জামান আবারো ১ লক্ষ ৫৭ হাজার টাকা যৌতুক হিসেবে দাবী করেন। অসহায় বাবার পক্ষে সেই টাকা দেয়া সম্ভব নয় তাই সোনিয়া টাকা দিতে রাজি হননি। ফলে নেমে আসে নির্যাতনের খড়ক বলেই কান্না করতে শুরু করেন তিনি। কিছুক্ষন পর দু-হাতে চোখের পানি মুছতে মুছতে তিনি আরও বলেন, এমতাবস্থায় ১৫ মে, সন্ধ্যায় কাজ শেষে বাড়িতে আসেন মনিরুজ্জামান। এসেই বাবার বাড়ি থেকে টাকা নিয়ে আসছে কিনা জানতে চায় সোনিয়ার কাছে। সোনিয়া না বলতেই শুরু হয় মারধর। এতে যোগ দেন শাশুড়ি-শশুর। এ সময় সোনিয়ার কোলে থাকা এক মাস বয়সী কন্যা শিশুরও আঘাত লাগে। পরে সোনিয়ার আত্মচিতকার শুনে বাবা-মাকে খবর দেন। তার মা সেখানে গিয়ে সোনিয়াকে উদ্ধার করে নিয়ে এসে উপজেলা স্বাস্থ্য-কমপ্লেক্সে ভর্তি করান।

এ বিষয়ে জানতে মনিরুজ্জামানের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, হ্যা একটু মেরেছি। আর আমি গাড়িতে আছি নেমে কল করবো। পরে বেশ কয়েকবার কল করলে আর কলটি রিসিভ করেননি তিনি।

এ বিষয়ে হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য-কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের দ্বায়িত্বরত চিকিৎসক ও উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার ডা. মহসিন আলম বলেন, ওই গৃহবধূকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছিলো। চিকিৎসা শেষে বাড়িতে চলে গেছেন। ওই গৃহবধূর বড় কোন সমস্যা হয়নি। তবে পায়ে ও শরীরের কিছু অংশে কালচে দাগ রয়েছে। ঔষুধ খেলে ঠিক হয়ে যাবে।

এ বিষয়ে হাতীবান্ধা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এরশাদুল আলম বলেন, এ ঘটনায় তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন