ঢাকাশুক্রবার , ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১
  1. Covid-19
  2. অপরাধ ও আদালত
  3. অর্থনীতি
  4. আন্তর্জাতিক
  5. ইসলাম ডেস্ক
  6. কৃষি ও অর্থনীতি
  7. খেলাধুলা
  8. জাতীয়
  9. তথ্য-প্রযুক্তি
  10. দেশজুড়ে
  11. নির্বাচন
  12. বানিজ্য
  13. বিনোদন
  14. ভিডিও গ্যালারী
  15. মুক্ত মতামত ও বিবিধ কথা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সুন্দরগঞ্জে নৌকা পেতে ১৫ ইউনিয়নে শতাধিক প্রার্থী!

প্রতিবেদক
প্রতিদিনের বাংলাদেশ
সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২১ ১:৫৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

রাশেদুল ইসলাম রাশেদ,স্টাফ রিপোর্টার।। গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এবার সরগম হচ্ছে স্থানীয় রাজনীতি । কে হবেন নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী? এ নিয়ে ভোটারদের আগ্রহের যেনো এতটুকু কমতি নেই। তেমনি সম্ভাব্য প্রার্থীরা নৌকার মাঝি হতে আদাজল খেয়ে মাঠে নেমেছেন।

এদিকে ভোটারদের দৃষ্টি কেড়ে নেয়ার জন্য পাড়া-মহল্লায় রংবেরঙের ব্যানার-ফেস্টুন টানাচ্ছেন। অন্যদিকে অনেকে দলীয় প্রতীকটা বাগিয়ে নিতে শুরু করেছেন দৌড়ঝাঁপ। উপজেলা ছেড়ে অনেকে জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতাদের আশীর্বাদ পাওয়ার আশায় জোর লবিং করছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকসহ নির্বাচনী এলাকায় ইতোমধ্যে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থীরা তাদের প্রচার প্রচারণা শুরু করে দিয়েছেন মসুল ধারে।

সূত্র জানায়, সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ১৫ টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী রয়েছে প্রতি ইউনিয়নে ৫ থেকে ৭ জন কিংবা তার বেশি। হিসেব করলে দেখা যায় উপজেলায় আওয়ামী লীগের প্রায় শতাধিক সম্ভাব্য প্রার্থী রয়েছে নৌকা প্রতীক পাওয়ার জন্য। এদের মধ্যে বেশিরভাগই নতুন মুখ। এদিকে দল ক্ষমতায়, অন্যদিকে আধিপত্য বিস্তারের আশায় অনেকে নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন বলে দাবী স্থানীয়দের।

প্রার্থী হওয়ার স্বপ্ন দেখে অনেকেই এখন থেকে খরচ করছেন বেশ টাকাপয়সা। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত প্রার্থীরা ছুটছেন এক গ্রাম থেকে অন্য গ্রামে। সাথে থাকছে দলীয় লোকজন আর এক ঝাঁক হোন্ডার মহড়া।

সরেজমিনে ঘুরে জানা যায়, অনেকে জেলার নেতাদের সাথে ঘনঘন যোগাযোগ করে নতুন করে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান,প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগ সমর্থিত সংসদের ছবি দিয়ে ব্যানার ফেস্টুন ছড়িয়ে দিচ্ছেন। আবার অনেকে কেন্দ্রীয় নেতাদের আশীর্বাদ নিতে দৌড়ঝাঁপ করছে বঙ্গবন্ধু এভিনিউর এবং অনেকে কেন্দ্রীয় নেতাদের সাক্ষাৎ পাওয়ার আশায় জোর লবিং করছেন।

ইসি সচিব (নির্বাচন কমিশন) মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার জানিয়েছেন ডিসেম্বর মাসের মধ্যে সমাপ্তি ঘটবে দেশের সকল ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের এমন সিদ্ধান্তের কারণে এখন আর বসে নেই এসব সুবিধাবাদীরা। দলীয় প্রতীক পেতে ব্যর্থ হন সেক্ষেত্রে বিদ্রোহী কিংবা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার কথাও শোনা যাচ্ছে। তাদের দাবি নিজেদের ব্যক্তিগত ইমেজকে কাজে লাগিয়ে তারা নির্বাচনে বিজয়ী হতে পারেন।

কোন ইউনিয়নে কে হচ্ছেন নৌকার মাঝি? কার হাতে যাচ্ছে ক্ষমতাসীনদের নৌকার বৈঠা? এমন প্রশ্ন কেন্দ্র থেকে তৃণমূলের মুখে মুখে। আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা বলছেন, নিবেদিতপ্রাণ কর্মী হিসেবে দলের জন্য যারা সব সময় কাজ করেছেন, নেতাকর্মীদের নিয়ে এলাকায় মানুষের পাশে ছিলেন, গণভিত্তি ও জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন; এমন প্রার্থী খুঁজে মনোনয়ন দেয়া হবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন